ছবি স্ট্যাচু মুর্তি

মূর্তি, স্ট্যাচু বা ছবির বেপারে ইসলামের কমান্ডের ফিলোসফীক্যাল দিকটা বেশ প্রগতিশীল। স্ট্যাচু বা ছবি যা মানুষের প্রতিকৃতি তার মাধ্যমে যুগে যুগে সেই স্ট্যাচুর মানুষটির মূল চরিত্রকে পরিবর্তন বা উল্টে ফেলাও হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর জনপ্রিয়তার মূল কারন ছিল-তিনি গনতন্ত্রের জন্য এবং স্বৈরতন্ত্রের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেছেন। পরে সেটা মহান মুক্তিযুদ্ধে রূপ নেয়। এখন তার ছবি কি আপনাকে গনতন্ত্রের কথা মনে করিয়ে দেয়? নাকি তার ছবি তারই আদর্শের উল্টা পথে চলার জন্য ব্যবহার হচ্ছে?
অনেক টাকা খরচ করে স্ট্যাচু তৈরী করা হয়েছে এমন কোন মুক্তিযোদ্ধাকে চিনেন। আমি একজনকে চিনতাম, তিনি কষ্টেই দিন পার করছিলেন।

গ্রিকদেবী তথা থেমিসের মূল স্ট্যাচুতে দেখবেন তার চোখ বাঁধা, এক হাতে তলোয়ার, আরেক হাতে পাল্লা। চোখ বাঁধা কেন? বিচার করার সময় চোখ বাধা না থাকলে কোন পক্ষের প্রতি ভালবাসার কারনে ন্যায় বিচার করা সম্ভব নাও হতে পারে। সৌন্দয্যের কারনে ন্যায়বিচার প্রভাবিত হতে পারে-এ কথা বলে দেয়। তাই এই স্ট্যাচুর প্রতি ভালবাসা -এই স্ট্যাচুরই অবমানা। অদ্ভুৎ না?

হুজুর বা সেকুলার তারা কি কারনে স্ট্যাচুর পক্ষে বা বিপক্ষে সেটা কি জানে?

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *