২০১৯ সালের ফেসবুক স্ট্যাটাস (জুলাই থেকে নভেম্বর ৩৫৩৩ শব্দ)

১৯ নভেম্বরঃ

কিছু কিছু বাজারে নতুন পেয়াজপাতা সহ পেয়াজ উঠছে। কাল কিনলাম। কৃষি পন্য বিশেষ করে খাবারের প্রকৃত মূল্য আমরা কখনো বুঝি না, এজন্যই অপচয় করি। আল্লাহ সোবহানা তায়ালার অশেষ রহমত গুনে শেষ করার নয়।

এক বছরের জন্য মুক্ত জলাশয়ের মাছ ধরা বন্ধ করা গেলে, হারানো অনেক প্রজাতির মাছ ফিরে আসতো। #আইডিয়া

১৭ নভেম্বরঃ

পেয়াজ ও অন্যান্য শাক সব্জি শুকিয়ে সংরক্ষণ এবং দামের সময় খাওয়া যায়। এ ধরনের ব্যবসা শুরু করতে পারেন। এই শীতে কিছু সব্জি ড্রাই করার ট্রাই করবো ইনশাল্লাহ। #আইডিয়া

১৬ নভেম্বরঃ

ব্যবসায়ীরা চাইলে এ দেশে দুঃভিক্ষও তৈরী করতে পারবে। অনেক খাদ্য থাকবে, কিন্তু না খেয়ে মারা যাবেন। এমন দুঃভিক্ষ ইতিহাসে অনেকবারই এসেছে।

১৪ নভেম্বরঃ

এই সভ্যতা ধ্বংশ হলে হয়তো কোন জ্ঞানই ফিরে পাওয়া যাবে না। সবই বাইনারীতে আর ইলেকট্রিকে কনভার্ট হয়ে গেছে।গ্লোবাল ওয়ামিং ও ক্যামিক্যালের ব্যবহারের জন্য এর জন্য সভ্যতা ধ্বংসের পথে হাটছে। কিছু জিনিস পাথরে বা এ্সএস সীট বা প্লাস্টিকে ছবি একে রাখা জরূরী। যাতে পরের সভ্যতার লোকজন তথ্যগুলো উদ্ধার করতে পারে। (আমার কথা অনেকের কাছে হাস্যকর মনে হতে পারে। হাসুন 😃 )

১০ নভেম্বরঃ

মসজিদের স্থানে মন্দির হওয়ার দুঃখে কত হাজার নতুন মসজিদ যে ভারতে হবে তার হিসাব আজ থেকে রাখুন। ভারতের মুসলমানেরা চাইলে ঐ এলাকাটা কিনে সম্পুর্ণটাকেই মসজিদ বানাতে পারবে। #বাবরি #মসজিদ

২ নভেম্বরঃ

অনেক সন্তানেরাই বাবা-মায়ের ভুলগুলো নিজেরা আলোচনা করে, অন্যদের বলে বেড়ায়। অথচ তারা তাদের দিক থেকে সঠিক ছিল। অনেক বাবা-মা সন্তানকে ভাল খাওয়াতে পড়াতে গিয়ে বাড়ি গাড়ী করে নাই। এটাকেও ভুল বলে, এমনকি এ জন্য তাদের তাচ্ছিল্যও করে। অনেক বৃদ্ধ বাবা-মাকে নির্যাতিত হতেও দেখেছি। সন্তানেরা বাবার হয়ে মাকে অথবা মায়ের হয়ে বাবাকে যখন ভতসনা করে তখন আরো বাজে পরিস্থিতিতে পরিনত হয়। টাকা পয়সা গুরুত্বপূর্ণ না এটা এই সমাজের সন্তানদের বুঝানোর মতো বই বা বাস্তব আদর্শ বা উদাহরণ খুব কমই পাবেন। টাকাকে নিরাপত্তার প্রতিক হিসেবে দেখা হয়। সমাজে বা স্কুলে বা কোথাও বেড়াতে গেলে যখন টাকার কারনে বুলিং এর স্বীকার হতে হয়, শিশু মন তখন বুঝে ফেলে যে টাকা শিক্ষার চেয়ে বেশি গুরুত্বপুর্ণ। শিক্ষার উদ্দেশ্যই টাকা উপার্যন। আরেকটু বড় হলে সে বাবা-মাকেই জাজ করা শুরু করে।১২ বছর বয়সে যে বাবা মা তার সন্তানকে আমরা বা চানাচুর বেচতে পাঠিয়ে দিয়েছে সে বাবা-মা ই সঠিক কাজ করেছে। আমি সম্ভবতঃ নিজের সন্তানকে অল্প বয়সেই উপার্যন করা শিখাবো। এটা আমার চেয়ে তার নিজের জন্যই বেশি প্রয়োজনীয়। (এ বিষয়ে হালকা কিছু লিখেছিলাম যা কমেন্টে পাবেন, আরো কিছু লেখার প্লান আছে।)

২৯ অক্টোবর

আমি খুসি যে, আর ১৬ বছর পর ১৮ তে ছেলেকে বিয়ে দিতে আর বাধা থাকলো না !

২৩ অক্টোবর

সোনালী ব্যাগ বাজারে আসার পর কয়েক হাজার টাকার ব্যাগ কিনে বিভিন্নজনকে গিফট দেব ইনশাল্লাহ !
অনলাইন ব্যবসায়ীরাও এটা করতে পারেন।

২২ অক্টোবর

বিশাল এক টিভি এবং সাংবাদিকতা ইনডাস্ট্রিকে গুড়িয়ে দিচ্ছে ইউটিউবার ও ফেসবুকাররা। বিদেশে সেটেল হওয়া ইউটিউবার ও ফেইক আইডির ফেসবুকারদের নিয়ন্ত্রণ করা সরকারের জন্যও কঠিন হয়ে গেছে।সব প্রতিষ্ঠান যখন ওয়েবসাইট তৈরী করলো তখন অনেক পাবলিক সাইটই জনপ্রিয়তার পতন দেখলো। প্রতিষ্ঠানগুলো এখন ভিডিও ক্রিয়েট শুরু করেছে-কিছু দিনের মধ্যে নিন্মমানের কনটেন্টের ইউটিউবাররা ঝরে যাবে। এখন এটার শুরু হয়েছে- অনেকেরই ভিউ কমছে…

১৫ অক্টোবর

মৌলিক চাহিদাগুলো পূরণের পর মানুষ মূলতঃ তিন ধরনের চাহিদার জন্য কাজ করে যায়। আরো বেশি টাকা আয় করে যায়।১. ভবিষ্যত নিরাপত্তা ২. বিনোদন এবং ৩. জনপ্রিয় হওয়া বা ফেইম

অথচ এই তিনটি জিনিস টাকা উপার্যনের মাধ্যমে অর্জন না করে আরেকভাবে করা যায়।১. নিরাপত্তার জন্য আত্নিয় স্বজনের সাথে ভাল সম্পর্ক।২. বিনোদনের জন্য পরিবার, আত্নিয় এবং সমাজের মানুষের সাথে মিশা। ঘুরে বেড়ানো।৩. জনপ্রিয়া হওয়া জন্য স্বেচ্ছাসেবা এবং মানুষের জন্য কাজ করে যাওয়া।

১৫ অক্টোবর

সন্তানদের কথা চিন্তা করে পারিবারিক ঝামেলাগুলো মিটিয়ে ফেলা উচিৎ।
হে আল্লাহ! আমার পাপের জন্য সন্তানকে শাস্তি দিয়েন না।

১২ অক্টোবর

ক্লাসরুম ভিডিও তৈরীর জন্য একটা টাচ মনিটর কিনলাম। ৫০ টা না বানাতে পারলে আফসোস থাকবে। উল্লেখ্য অনেক টাকাই কনটেন্ট তৈরীতে খরচ করেছি যে সময় অন্য কাজে দিলে আরো বেশি রেভিনিউ আসতো, কিন্তু এই কাজটা যে আমার ভাল লাগে ! মডেল ASUS PT201Qআরেকটা কথা- প্রায় ১২ বছর ধরে হাতে না লিখতে লিখতে হাতের লেখা খারাপ হয়ে গিয়েছে। এখন নতুন করে আবার কলম দিয়ে এখানে লেখা শুরু করছি।

১২ অক্টোবর

ধারাবাহিক ডিক্টরশীপ একসময় ছাত্র রাজনীতি এবং সব অপরাজনীতি বন্ধ করে দিবে। খাই খাই নেতাদের কিক মারবে। সো, আই লাভ ডিকটেটর।

১২ অক্টোবর

সরকারী ছাত্র সংগঠনের (ছাত্রদল, ছাত্রলীগ বা শিবির যখন যারা ক্ষমতায় থাকে বা হলের নিয়ন্ত্রণে থাকে) কাছে বরাবরই লাঠি থাকে । তারা বিরোধীদের পিটায়, হলে রাখে বা বের করে দেয়। এটা তাদের অধীকার হিসেবে দিয়ে দেওয়া হয়েছে। ভিসি বা দলের কেন্দ্র থেকে তাদের সাপোর্ট দেওয়া হয়। সরকার পরিবর্তনের সাথে সাথে ভিসি এবং হলের নিয়ন্ত্রণও পরিবর্তিত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের রেনোভেশনের টাকা তাদের হাত দিয়ে খরচ হয়- ভিসি সেই ব্যবস্থা করে।পিটাতে পিটাতে আবরার মারা না গেলে অপরাধীদের কিছুই হতো না, বরং আবরারের বিরুদ্ধে মামলা করা হতো। এই ছাত্ররাজনীতির কারনে ৫০০ এর কাছাকাছি মেধাবী ছাত্র মারা গেছে।এই হলো বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ছাত্র রাজনীতি। এই ছাত্র রাজনীতির প্রতি এদেশের মানুষের কত আবেগময় আশা !

১০ অক্টোবর

ভাল কনটেন্ট ভাষা ছাড়িয়ে যায়।
ইংরেজী, হিন্দি, উদু এমন কি চাইনিজ ভিডিওর ভাষাও বুঝে ফেলি ! যদিও সেই ভাষা জানি না।

১০

ছোট খাটো মারামারি, চর থাপ্পর, ঝগড়া, বিবাদ বা একটু উচ্চস্বরে চিল্লানো বা মাইক বাজানোতে পুলিশ চলে আসবে। জরিমানা করবে বা ছোট ছোট স্বাস্তি সাথে সাথে দিবে। অনেক বড় বড় অপরাধ এভাবে বন্ধ করতে পারে।ছোট ছোট সুবিধার জন্য পাবলিক সার্ভিস চালু হবে যেমন-বাস বা ট্রেন স্টেশনে রুগিদের জন্য হুইল চেয়ারের ব্যবস্থা, ট্রেনটা কখনো প্লাটফর্মহীন মাঝের লাইনে না দাড়ানো- ইত্যাদি চালু করা। কিছু সচেতনতা কর্মি থাকলো তারা ময়লা যারা ফেলবে তাদের ভদ্রভাবে সচেতন করবে- পরিচ্ছন্নতা কর্মি কমিয়ে তাদের নিয়োগ দেওয়া যেতে পারে। শিশুদের একটু বিনোদন দেওয়ার জন্য হয়তো কিছু খেলনা বা উপকণ থাকলো বিভিন্ন স্টেশনে যাতে তারা বোরিং না হয়ে যায়। এমন ছোট ছোট উপকার আমাদের সভ্যতা অনেক বড় যায়গায় নিয়ে পৌছাতে পারে।পরিবার থেকে অনেক কিছু এখনই শুরু করতে পারি- যেমন- ঘরে ফায়ার এক্সটিংগুইসার কেনা ও ব্যবহার শিখা। পরিবারের সদস্যদের প্রতি আরো বেশি কেয়ারিং হওয়া। শব্দ দুষণ ও পরিবেশ দুষণ সম্পর্কে আইন কি বলে তা শেখা। ছোট অপরাধগুলোকে সাথে সাথে শোধরানো অথবা প্রতিরোধ করা। পাসের বাড়ি ঝামেলা হলে ৯৯৯ এ কল করে পুলিশ ডেকে আনা।(এই সব নিজের জন্যই বলা)

৮ অক্টোবর

অপরাধী ছাত্রদের প্রতি আমার বরাবরই মায়া হয়।আমার ছেলে যদি ভার্সিটিতে গিয়ে রাজনীতিতে জড়িয়ে একমন অপরাধ করে! আমি ভাবি- এই ভাবনায় অনেক দুর্বল বাবা মা তাদের সন্তানদের বিদেশ পাঠায়। কেউ নিজেরা সহ চলে যায়। অনেকে মাদ্রাসায় পড়ায়। অহ ! সব বাবা মা-ই আসলে দুর্বল।

ছোট ছোট অপরাধ করার সুযোগ দিয়ে দিবো। পরে যখন বড় অপরাধ সামাল দিতে না পারবো তখন বিচার করবো। এখানে ভিকটিম এবং অপরাধী উভয়ই ভিকটিম।

৭ অক্টোবর

ভারতে বসবাস খরচ অনেক কম। অনেকেই ভারত গিয়ে বসবাস শুরুও করেছে। ভিসা চাইলে দিয়ে দেয়, মাত্র ৮৫০ টাকা ফি লাগে। আমি ইতিমধ্যে ভিসা নিয়েছি। অনেকেই যাচ্ছে, ভিসা সেন্টারে কি ভীড় দেখেন গিয়ে !পানি. গ্যাস, মাছ ও অন্যান্য উপকরণ ভারত পাঠানোতে আপনি খুসি হন না কেন? ওটা আমার দাদা নানাদেরই দেশ। 🙂

৭ অক্টোবর

ফেইক আইডি বলতে কিছু নাই। প্রতিটা আইডিই কেউ না কেউ চালায়।রাস্ট্রের ইন্টেলিজেন্সের লোকেরা মিথ্যা পরিচয় দেয়।

আপনি যদি ফেক আইডি খুলে ইথিক্যাল কাজ করেন, দেশের ভালর জন্য কিছু লেখেন তাহলে তার জন্য আপনাকে সেলুট।প্রতিক্রিয়াশীলদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হয়তো আমাকে বা আপনাকে একদিন না এক দিন ফেক আইডি দিয়েই কথা বলতে হবে।

একটিভিটর একটা সময় আছে যখন মানুষ রাজনীতি করে না, এমন কি রাজনীতি নিয়া কথা বলে না। তারা জানে যে, এই কথা বলার চেয়ে এমন কিছু জায়গায় যেতে হবে যাতে সবাই কথাটা সোনে। রাজনীতিকে যাতে পাল্টে ফেলা যায়। দু একটা প্রতিবাদ করতে গিয়ে সমস্ত কাজ ভুন্ডুলও হবে আর কোমরে বারি দিয়ে উঠতি উদ্দোকটাও নষ্ট করে ফেলবে।

কিন্তু মনে মনে যে বিদ্বেস, কথা না বলতে পারার অভাববোধ তা এক দিন না একদিন একই সাথে আক্রোমন করে বসবে। সকল পাপের দাঁত ভাঙ্গা জবাব দিবে।

https://www.facebook.com/notes/5320830634609646

অক্টোবর ৩

গ্রামের কিছু চায়ের দোকনগুলোয় বাংলা সিনেমা না দেখিয়ে ইউটিউবে এক্সপার্ট কাটাকাটি ও অবাক অবাক জিনিস বের করে দেখানো শুরু করছে। 🙂 বাসের টিভিতে টিকটক ভিডিও চলতে দেখলাম।Alas ! নায়ক নাইকা ও টিভি চ্যানেলের দিন শেষ ! 👩‍✈️

অক্টোবর ১

মুসলমানদের দ্রুত উত্থানের ইতিহাস যদি পড়েন। দেখবেন তার কিছু দিন আগে প্রতিবেশী অমুসলিমরা চুক্তি ভঙ্গ করেছিল। শক্তি প্রদর্শন করেছিল। ছোট ছোট লুটপাটের ঘটনা বা মুসলিমদের মেরে ফেলার ঘটনা ঘটিয়েছিল। ১০০+ এমন ঘটনা পাবেন হয়তো।

তাই এই সময়টাও মুসলিমদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। দেখেন- আমাদের সাথে কত কত চুক্তি ভঙ্গ হচ্ছে । #পানি#রোহিঙ্গা#কাস্মির

মুসলিম শাসকরা অমুসলিমদের দেশ দখল করে সাধারণ জনগনের সাথে ভাল ব্যবহার করেছিল, তাদের সাথে ন্যায় সঙ্গত আচরণ করেছিল। আপনি জানেন? আমরা মুসিলমরা আসলে সেই ন্যায় সঙ্গত আচরণ যেদিন করতে পারবো আল্লাহ সেদিনই হয়তো বিজয়ী করবেন। আমাদের অমুসলিমদের প্রতি ন্যায় সঙ্গত আচরণ শিখতে হবে আগে।

পদার্থ বিজ্ঞান আমার প্রিয় বিষয় ছিল। এসএসসির পদার্থ বিজ্ঞান বইটা যথেষ্ট নষ্ট করা হয়েছে- দেখে অবাক হলাম। সম্পাদকরা বেশ কিছু ভুলও লিখেছে – আগের লেখকের লেখার উপর সাহিত্য ঢুকানোর অপচেষ্টা করা হয়েছে। আমি বইটা নতুন করে পড়ে কিছু অসঙ্গতি শেয়ার করবো।

৩০ সেপ্টেম্বর

ইমরান খান ও খালেদা জিয়ার জনপ্রিয়তার কারন যথাক্রমে ভারত ও আওয়ামিলীগ।

৩০

অনেকের অনেক হার্ডওয়্যার ও আইটি প্রোডাক্ট ব্যবহার করতে মন চায়। বই লাইব্রেরীর মতো প্রোডাক্ট লাইব্রেরীর ব্যবস্থা যদি থাকতো। এক এক জন এক একটা প্রোডাক্ট কিছু দিনের জন্য ব্যবহার করে আবার ফেরত দিবে! #আইডিয়া

২৬ সেপ্টেম্বর

আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্সের অগ্রগতির সাথে সাথে তাদের উপদ্রবও অনেক বেড়ে যাবে। অনেক সাইট ডাটার নিরাপত্তার খাতিরে লগন ইন করে ভিজিট করতে হবে। ফ্রি রেজিস্ট্রেশন করে বটগুলো আবার একই কাজ করা শুরু করবে। তখন সাইটগুলো পেইড হতে বাধ্য হবে। এমন কি বটগুলো পেমেন্ট করে ব্রাউজ শুরু করবে। তখন মানুষ দৈনিক কতটা পরতে পারবে ততটার বেশি ভিউ করবে না- এমন ব্যবস্থা শুরু করবে। তখন বটগুলো ততটা পর্যন্ত পড়বে এবং ডাটা কালেকশন করবে। সম্ভবতঃ হিউম্যান ডিটেকটর ভাল কোন টেকনোলজী আসবে। তখন বিগ ডাটা নিয়ে কাজ করা প্রতিষ্ঠানগুলো মানুষ ভাড়া করবে, মানুষ ও বট মিলে তথ্য কেড়ে নিবে।

২৫ সেপ্টেম্বর

একটা সেশনে তিনটার বেশি পোস্ট ফ্রিতে পড়তে পারবে না – এই নিয়ম করার পর ভিজিটর বেড়ে গেল। আর্টিকেল গুলো পেইড করার পর ভিজিটর তো কমলোই না বরং প্রতি ভিজিটর বেশি সময় সাইটে থাকা শুরু করলো। টাকা দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করে টিউটোরিয়ালবিডি মানুষ পড়বে – জানা ছিল না, কিন্তু পড়ছে। আল্লাহর কাছে শুক্রিয়া, আলহামদুলিল্লাহ ! বাংলাদেশে সম্ভবতঃ এটাই প্রথম যে টেক্সট কনটেন্ট টাকা দিয়ে পড়ছে। যদি সময়ের দামের অর্ধেকের কম দামও পাই তবুও লেখবো। ব্লগিং ছাড়বো না, ইনশাল্লাহ।আরেকটা কথা ফ্রিও মানুষ পড়তে পারবে সেই ব্যবস্থা সবসময়ই থাকছে, শুধু সিরিয়াস পাঠকরাই পেইড হবে। খরচের টাকা উঠে গেলে কনটেন্ট ব্লকও উঠে যাবে। 🙂

ক্ষমতা ধরে রাখা – https://www.facebook.com/notes/5320830327943010/

১৭ সেপ্টেম্বর

বেকাররা গুরুত্বপূর্ণ একটা কাজ করে-
যারা প্রচুর কাজ করে তাদের সমালোচনা।

১৭

পড়তে পারেন Bioplastic

১৪ সেপ্টেম্বর

কোন একটা লক্ষ্যে যেতে যেতে মানুষ অনেক অনেক কাজ করে থাকে। পৌছানোর পর থেমে যায়। কখনো কখনো পৌছানো উচিৎই না। 😛 পাছে থেমে যায় !

১৩ সেপ্টেম্বর

You value your creation far more than other. No body can copy this. 🙂

১১ সেপ্টেম্বর

খুব সাধারন মানের কনটেন্ট, অথচ নিয়মিত প্রকাশনার জন্য অনেকেই বেশ জনপ্রিয়। অনেকেই ইউটিউব সেলিব্রেটি পর্যন্ত হয়ে হয়ে গেছে। সাধারণ মানুষের কাছে তারা পৌছাতে পেরেছে। তাদের জন্য হাততালি।ভাল মানের কিছু বানাবো বানাবো বলে সময়ই শেষ! এই অপ্রকাশিত গুপ্তধনের কোন দাম নাই।

২ সেপ্টেম্বর

নিজের পড়ার বাইরে, অন্যের পাঠ্যবই ধার করে পড়েছি। দর্শন ও সাইকোলজীর বই আর পড়েছি কবিতা । সাইন্স না পড়লে হয়তো সাহিত্য, দর্শণ বা সাইকোলজী পড়তাম।

১ সেপ্টেম্বর

দশ বছর আগে বন্ধুর সাথে কম্পিউটার বিষয়ক আলাপ করছিলাম ফোনে। পাস থেকে একজন কলিগ মনযোগ দিচ্ছিল। কথা শেষে সে বললো, কি সব কথা বলেন অনেক কিছুই বুঝি নাই, তবে বুঝছে যে এগুলা টেকনিক্যাল ব্যাপার। এখন কিন্তু সাধারণ মানুষও অনেক অনেক ট্যাকনিক্যাল টার্ম বোঝে। তবে এখনো নতুন নতুন প্রযুক্তি আবিস্কার হচ্ছে এবং অনেক টার্ম বুঝি না, তাই কম্পিউটার ডিকশনারী বানানোর চেস্টা শুরু করি। নতুন কোন শব্দ শিখলে সেখানে লেখি। নতুন কিছু আইটি রিলেটেড শব্দ জানাতে পারেন যা শিখে বাংলায় বর্ণনা করবো।টিউটোরিয়ালবিডি.কম/word এ টেক শব্দগুলো দেখতে পারেন। আশা আছে ৫০০+ শব্দ লিখবো এবং এটা চলমান থাকবে ইনশাল্লাহ। ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য এটা দারুন কাজে দিবে। উল্লেখ্য ডিজাইনে বেশ কিছু পরিবর্তন করলাম।

৩১ আগস্ট

ইসলামের ইতিহাস যদি পড়েন তাহলে দেখবেন বিভিন্ন সময় চুক্তি ভঙ্গের কারনেই মুসলমানরা বিধর্মী রাস্টের সাথে যুদ্ধ করতে বাধ্য হয়েছিল। এমন ঘটনা সম্ভবতঃ ২০ টার অধিক আছে । অধিকাংশ বিজয়ই মুসলিমদের হয়েছিল, নতুন নতুন বিধর্মি অঞ্চল মুসলিমরা শাসন করেছে। বিধর্মী সাধারণ নাগরিকরা মুসলিম শাসকদের ওয়েলকাম জানিয়েছিল-শুধু মাত্র ইনসাফের কারনে। (ইউরোপিয়ান ইতিহাসবিদরা সালাহউদ্দিন আয়্যুবি ও অন্যান্য মুসলিম শাসক সম্পর্কে কি বলে জেনে দেখতে পারেন।)

মুসলিম শাসকরা যে সাধারণ অমুসলিমদের ক্ষতি করবে না-এই নিশ্চয়তা ইসলামের অগ্রযাত্রার দারুন উপকণ ছিল।

আসপাসে তাকিয়ে দেখেন, কাস্মিরে তাকান, মিয়ানমারে তাকান মুসলিমদের সাথে মোটামুটি ভালই চুক্তি ভঙ্গ হচ্ছে। এটা মুসলিমদের জন্য সুখবর যে আল্লাহ চাইলে মুসলিমরা আবারো ভারতবর্ষ ইনসাফের সাথে শাসন করবে-এটা অমুসলিমদের জন্যও একইভাবে সুখবর-যে তারা ইনসাফ কাকে বলে তা আল্লাহ চাইলে দেখতে পাবে।

তবে হা, মুসলিম নেতাকে চেনার ক্ষেত্রে আমি সহজ দু্টি বৈশিষ্ট্য দেখি- লোক দেখানোর প্র্যাকটিস আছে কিনা? আরামদায়ক জীবন যাপন করে কিনা? আপাততঃ এমন নেতা হয়তো নাই, আসবে ইনশাল্লাহ।

৩০ আগস্ট

টমেটো এবং গাজর সিজনে ১০ টাকা অফ সিজনে ১৫০ টাকা পর্যন্ত হয়। ড্রাই ভেজিটেবল ব্যবসা করা যেতে পারে। তার আগে ড্রাই ভেজিটেবল খাওয়ার সংস্কৃতি গড়ে তুলতে হবে। ড্রাই ভেজিটেবলের শিল্প গড়ে ওঠলে কৃষকের দারুন উপকার হবে। #আইডিয়া

২৮ আগস্ট

আমার ফেসবুক ফ্রেন্ডদের যাদের ই-কমার্স ব্যবসা আছে তারা চাইলে ফ্রিতে প্রচার পেতে পারেন। আমার কমিউনিটি অন্য কোথাও থেকে পন্য না কিনে নিজেরাই কিনুক এটার জন্য এটা করা। আগ্রহীরা লিংক মন্তব্য করেন। ওয়েবসাইট বিভিন্ন গ্রুপ ও পেজে প্রচার করে দিবো।

২৭ আগস্ট

রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানের একটা সোজা পথ হলো তাদের ভাগ করে রাখা – প্রতিটা থানায় ভাগ করলে, প্রায় ২০০০ জন করে হবে। প্রতিটা গ্রামে রাখলে ১০ জন করে পরবে। ম্যানেজ করা বেশ সহজ। ওহ ! তাদের মিয়ানমার পাঠানো? সেটা কখনোই হবে না-লিখে রাখেন।

২৭

আমি চাই আমার লেখা মানুষ পড়ুক। এটা আমার বিনোদন, এজন্য সাইটের পেছনে অনেক টাকা আমি খরচও করি। সাইটের ভিজিট কমছে- দুইটা সাইটে দশ হাজারের মতো মাসিক ভিউ হয়, এখন। ভিডিও ভিউ ৩০ হাজারের মতো। চাকরীর টাকায় চলি।মন চায় বিজ্ঞাপন দিয়ে মানুষকে আমার লেখা পড়াই ! অঢেল টাকা থাকলে হয়তো তাই করতাম।

২৭

রোহিঙ্গারা যখন আসছে তখনি বুঝছি তারা ফেরত যাবে না, যাওয়ার মতো ব্যবস্থা কখনো হবে না। এখনো অনেকে বোঝে না !

২৬ আগস্ট

(সম্ভবতঃ) বাংলাদেশে একশটা রাইড শেয়ারিং কোম্পানী জন্ম নেবে। ৯৫ টা জন্মের বছরই মারা যাবে। শেষ পর্যন্ত দুইটা টিকবে।

২৬

মানুষিক স্বাস্থ্যের উপর বিদেশে প্রচুর আর্টিকেল পাবলিশ হয়। অনেক লোক অনলাইনে ট্রেনিং নেয়। আমেরিকাতে প্রতি ছয় জনে নাকি এক জন মানুষিক সমস্যায় ভোগে। নিয়মিত নামাজ পড়া মুসলমানদের মধ্যে এই সমস্যাটা কম কারন তারা ব্রেনকে ঠান্ডা হওয়ার জন্য বেশ সময় দেয়, আল্লাহর কাছে অন্ততঃ নালিশ করার সুযোগটা পায়।

অন্যদের মধ্যে অনেকেরই মানুষিক স্বাস্থ্যের সমস্যা রয়েছে। আমার ধারণা বেকার ও অতি ব্যাস্তদের অনেকেরই মানুষিক সমস্যা আছে। ছাত্রদের মধ্যে যাদের সঠিক ক্যারিয়ার গাইডলাইন নাই তাদেরও সমস্যা প্রকট। এই বিষয়ে বাংলাদেশের মানুষের জন্য কাজ করার প্লাটফর্ম আছে, মনোবিজ্ঞান নিয়ে পড়া বন্ধুরা ভাল কোন উদ্যোগ নিতে পারে। #আইডিয়া

২৫ আগস্ট

স্বাস্থ্য বিষয়ক প্রায় দুই লাখ শব্দ লিখতে প্রায় ২০ লাখ শব্দ পড়তে হবে। দুই বছরে প্রতি দিন গড়ে ২৭০০ শব্দ পড়তে হবে। দৈনিক গড়ে ২৭০ বাংলা শব্দ লিখবো ইনশাল্লাহ। এরকম অদ্ভুত পরিকল্পনা সফল করার জন্য দোয়া চাইছি। এটা আমার জ্ঞানকে বৃদ্ধি করবে এটাই মূল মটিভেশন।উল্লেখ্য ইতিমধ্যে প্রায় ১০ হাজার শব্দ লেখা হয়ে গেছে। 🙂

২৫ আগস্ট

হতে পারে প্রাকৃতিক দুঃযোগগুলোও প্রকৃতির জন্য উপকারী। আমরা হয়তো বুঝিনা কি হতে যাচ্ছে। হতে পারে #দাবানল উপকারী।

২৫

অনেকেই ব্লগ লেখতেন। এখন লেখেন না কেন? কোন কোন কারনে তারা লিখতেন এবং কি কারনে এখন আর লেখেন না? একটু গবেষণা হোক !

২১ আগস্ট

একবার একটা ই-কমার্স সাইটে কিছু অর্ডার করলাম। ফোন করতেই দেখলো আমার নম্বরটা তার ফোনে সেভ করা। আগের পরিচয় ছিল, আমার কাছ থেকে হোস্টিং নিয়েছিল। এমন বেশ কিছু ই-কমার্স উদ্যোক্তা কোন না কোন ভাবে পরিচিত, পন্য অর্ডারের সাথে ভাল সাপোর্ট দেয়। আলাপ করেও ভাল লাগে। কেউ কেউ গিফটও করে।ই-কমার্স শুরু করলে গিফট করতে ভুলবেন না। 🙂

২১

মারুফ বিল্লাহ ভাই মধু পাঠালেন। বেশ ভাল মনে হলো। সুন্দরবনের মধু নিতে তার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

২১

ধনীদের টাকা খরচ না করা বেশি ক্ষতিকর। ধনীদের বিলাসিতা দরিদ্রদের আয় বাড়ায়। তাই তাদের বিলাসিতাকে হিংসে করা উচিৎ না।

১৯ আগস্ট

দুইটা কারনে বাবা-মা কিশোর সন্তানদের বকা দেন যা উচিৎ না।১. রাতে তারাতারি ঘুমিয়ে গেলে।২. অধিক চঞ্চলতার জন্য। বাচ্চাদেরসহ বড়দের পর্যাপ্ত ঘুমানো প্রয়োজন। কিশোর বয়সের চঞ্চলতা হাড় হঠনের জন্য বিশেষ প্রয়োজন। বাচ্চাদের দোড়ানোর ও দুষ্টামির জন্য জায়গা দিন।(আমি ডাক্তার না তবে অথেনটিক সোর্স থেকে শিখে শেয়ার করছি।)

১৯

কিছু দেশের বাসাগুলোতে যতগুলো রয়েল ব্যাঙ্গল আছে তা সুন্দরবনেও নাই !

১৮ আগস্ট

ঈদের ছুটির কারনে সব্জি চাচার লেবু গুলো হলুদ হয়ে গেছে। দশ টাকায় দশটা, ভাগ দিয়েছে। ত্রিশটা কিনলাম। ৫টা লেবু দিয়ে এক গ্লাস সরবত বানিয়ে খেলাম !

১৪ আগস্ট

আমি যা পড়ি তাই লিখি। বলা চলে লেখাটা আমার পড়ার রিভিশন। বিভিন্ন রোগ বালাই হওয়াতে আমি ইদানিং প্রচুর স্বাস্থ্য বিষয়ক লেখা পড়ছি। রিভিশন হিসেবে লিখছি। টারগেট আছে ২০০০ শব্দের ১০০ টি লেখা (মানে ২ লাখ) স্বাস্থ্য বিষয়ক শব্দ লিখবো ইনশাল্লাহ।পড়তে চাইলে আমার সেই ১০ বছর আগের ওয়েবসাইট টিউটোরিয়ালবিডিতে মাঝে মাঝে গিয়ে দেখতে পারেন।

১১ আগস্ট

২০ হাজারের বেশি মাদ্রাসা ও এতিম খানা আছে দেশে। নাম মাত্র টাকায় বা বিনা টাকায় দরিদ্র ও এতিমরা সেখানে থাকে, খায়, পড়ে। চামড়া শিল্পের সিন্ডিকেট ব্যাবসা মাদ্রাসাগুলোর আয় কমিয়ে দিয়েছে।মাদ্রাসাগুলো মিলে ট্যানারী ব্যাবসা দিতে পারে। অথবা বড় কোন ডোনার একটা চামড়া শিল্পস্থাপন করতে পারে যে শুধু কুরবানীর সময় মাদ্রাসাগুলোর চামড়া প্রসেস করবে, ন্যায্যমূল্য দিবে। #আইডিয়া

৮ আগস্ট

কেন্দ্রিয় সরকারের আধীনে থাকার বড় অসুবিধা দুইটা-

১. টাকার মানদন্ডে যা মাপা যায় না এমন প্রাকৃতিক সম্পদগুলো সরকারের মাধ্যমে সম্পদশালীরা লুট করে নেয়। এবং পন্যে পরিনত করে। এটা হলো অর্থনৈতিক আগ্রাসন।

২. সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় আগ্রাসন। এটা করার জন্য প্রথমে হাত দেয় শিক্ষা ব্যবস্থায়। আধুনিক শিক্ষার নামে এই ব্যবস্থাটাও নষ্ট করে।

বাংলাদেশের পাহাড়কে বাঙালীরা নিজেদের দাবি করে, অনেক পাহাড়ী এলাকায় গেলে দেখা যায়, সরকারের পান্ডারা পাহাড় কিনে নিয়েছে, মাটি ও পাথর কিভাবে বিক্রি করেছে। অথচ এগুলো পাহাড়িদের সম্পদ ছিল। এটাকে পন্যে পরিনত করেছে। খুব কাছে থেকে না দেখলে জানাই যায় না-অনেক কিছু। অতি বৃষ্টিতে প্রতিবছরই মাহাড় ধ্বসে মানুষ মারা যায়। কেন জানেন? পাহাড়ের এক অংশ ৯০ ডিগ্রীতে কেটে নিচু অংশে বস্তি বানিয়ে মানুষ বাস করে। বৃটিশরা এ জন্যই কিছু অঞ্চলকে স্পেশাল অংঞ্চল হিসেবে রেখে গিয়েছিল, এখানে বাইরের কেউ জায়গা জমি কিনতে পারবে না। আলাদা রাষ্ট্র হওয়ার চেয়ে এটা ঢের ভাল। কাস্মিরকে কেন্দ্রীয় সরকারের অধীনে নিয়ে এসে ভারত ও কাস্মির উভয়েরই ক্ষতি হওয়ার আসঙ্কা তৈরী হলো !

৭ আগস্ট

বেশি কমেন্ট হয়না এমন কেউ সহজেই অনেক কমেন্ট পেতে পারেন।
শুধু লেখবেন, ডোমেইন-হোস্টিং কিনবো কোথা থেকে?

বৃটিশ শাসকরা অধিক বর্বর ছিল নাকি ভারতবর্ষের (ভারত, বাংলাদেশ ও পাকিস্তান) শাসকরা?

৪ আগস্ট

যৌবনে সাধ্যের অতিরিক্ত ত্যাগ স্বীকারকারীরা বৃদ্ধ বয়সে প্রোটেকটিভ মুডে চলে যায়। থ্যাংকফুল থাকার জন্য অতিরিক্ত ত্যাগ স্বীকার থেকে বিরত থাকুন।

২৭ জুলাই

নিজের ও কাছের লোকদের বিভিন্ন রোগ বিষয়ে বিভিন্ন আর্টিকেল পড়ছি। ভাগ্য ভাল যে এখনো অনেক কিছু ফ্রিতে পড়ালেখা করা যায়। অনেক অনেক মেডিক্যাল টার্মস শেখা হচ্ছে। আইটির চেয়ে বেশি মজা। 🙂

২৩ জুলাই

জনগনের কিছু কমন আইডিওলজী আছে। সেটা হচ্ছে তারা শোষিত-ই হয়ে যাচ্ছে। সব সরকার এসে প্রসাশনকে নিয়ে তাদের শোষণই করে যাচ্ছে। প্রসাশন এবং রাস্ট্রনায়করাই খারাপের দিক থেকে সব শ্রেষ্ঠ।

এখন এই জনগনের কতককে যদি বলা হয় প্রসাশনের চাকরী দেবো – আসো। মন্ত্রী বানাবো আসো। দৌড়ে তারা যাবে। যাওয়ার সময় তারা ভাববে কিভাবে আরেকটু বেশি শোষণ করা যায়।

এই যে কল্লাকাটার বিষয়টা নিয়ে মানুষের আতঙ্ক ও বিশ্বাস। সরকারের ও প্রশাসনের বিরুদ্ধে মানুষের অবিশ্বাসের আইডিওলজীর প্রতিফলন। কেউ পুলিশকে জানাচ্ছে না- ভাবছে পুলিশ ও সরকার কল্লাকাটাকে সেফ করবে।আপনি সচেতন নাগরিক ! একটা স্ট্যাটাস দিয়ে সচেতনতা কয়েক শতাব্দির শোষনের ইতিহাসকে মুছে দিতে পারবে না – দরকার ভাল শাসনের বাস্তব উদাহরণ। দরকার মানুষকে সচেতন করার দির্ঘমেয়াদি কোন কর্মকান্ড।

২২ জুলাই

অনেক জামাত-বিএনপি পন্থী হুজুর ওয়াজে এরশাদের প্রশংসা করেছিল।
অনেক আওয়ামী প্রগতিশীল তাকে গালাগালি করেছিল।
ইসলাম ফ্যাক্ট ছিল।
Noted

মাছ কিনতে গিয়ে চাচা সম্মোদন করলাম। কিছুক্ষণ তার খোজখবর নিলাম। বেশ কম দামে মাছ দিয়ে দিলো।
এখনো মানুষের সহজ সরলতা শেষ হয়ে যায় নাই।

২১ জুলাই

দুইমাস আগে এক কুটি টাকার পিয়াজ কিনে আরো দুইমাস পরে একই দামে গরীবদের কাছে বিক্রি করলে প্রায় এক কুটি টাকা দান করা হয়ে যেতো। আবার এক কুটি টাকা থেকেও যেতো।

কনভেনশনাল ডোনেশনের চেয়ে এটা বেশি ইফেকটিভ হতো এজন্য যে পুজিবাদের উপর এটা একটা বড় আঘাত করতো। ইচ্ছাকৃত দামবৃদ্ধি দমে যেতো।

১৭ জুলাই

দেশপ্রেম এবং অসাম্প্রদায়ীকতা রেসিজমের দুটি শাখা।

১৪ জুলাই

এরশাদ দারুন ছিল। ইন্নানিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।তার শাসনামলের কয়েকটা দুরদর্শি পদক্ষেপ ছিল।

১৩ জুলাই

গরমকালে এত দারুন বৃষ্টি অনেক দেশেই নাই। এত আদ্রতাও নেই বাতাসে। এই বৃষ্টিই সবুজ করে রাখছে বাংলাদেশকে। বলাচলে সারা বছরের জন্য মাটিকে রসের সঞ্চয় দিয়ে যায়। দক্ষিণে সমুদ্র আর উত্তরে পাহাড় দিয়ে বেষ্টিত দারুন এক প্রকৃতির দেশ বাংলাদেশ। পাহাড়ের ঝর্ণার পানির বড় অংশই নদীর মাধ্যমে ছোট ছোট খালে প্রবাহিত হয়ে অপরূপ করে রেখেছে।

১৩

চাকরী বা ব্যবসা করা পরেও আমরা বেকার।
বড় একটা সময় আমরা বসে থাকি। বেকার হলে যা যা করতাম তা তা এখনই শুরু করতে পারি। কি বলেন?

১৩

ফেসবুকিয় নসিহত নামাঃ

১. ফেসবুক স্ট্যাটাস বা কমেন্টের মাধ্যমে মানুষের মানুসিকতাকে পরিবর্তন করতে পারবে না। এই চেষ্টা না করে নিজের মত প্রকাশ করে যেতে পারো। বড় কোন আর্টিকেল লিখতে পারো, ব্লগ বা ভিডিও বানাতে পারো।

২. পাবলিক দুর্ঘটনায় অনেক কষ্ট পেয়ে উপযুপরি লাইক, শেয়ার বা ছবি পোষ্ট করে সেটা নিয়ে সারা দিন কাটিয়ে দিয়ে লাভ নাই। মনে রাখবে- এগুলো করে কোন উপকারই করছো না। বরং কাজে মন দিয়ে সমনের ছোট দু একটা সেবামূলক কাজ বেশি কাজে দিবে।

৩. সমাজ বা রষ্ট্রনায়কদের নিন্দা বা সমালোচনা করবা না। এগুলো করার মতো অনেক লোক আছে। তবুও কোন লাভ হচ্ছে না। কোন কিছু নিয়ন্ত্রণ করতে হলে শক্তি প্রয়োজন হয় ঘৃণা না। শক্তি অর্জন করো।

৪. ভাইরালের মাধ্যমে দুষ্টের দমন করতে চাও? এই হাতিয়ার অনেক আগেই কেড়ে নেওয়া হয়েছে। বড় মিডিয়াগুলো সরকারের গোলাম। কিছু টাকার মাধ্যমে অনেক অনেক সোস্যাল আইডি তৈরী করে নতুন কিছু ভাইরাল করার ব্যবস্থাও করা হয়েছে। ইফেক্টিভ ব্যক্তিতে পরিনত হতে সময় ব্যায় করো।

১১ জুলাই

আপনি বেকার হলে এবং এখনকার সময়ের মতোই মাসিক আয় থাকলে কি কি করতেন?

https://www.facebook.com/mahbubtuto/posts/3405317876160941

১১

বাইকের সংখ্যা বৃদ্ধিতে কেউ কিন্তু বলে নাই অনেকে স্বাস্থ্য ঝুকিতে পরবে, হাটা উচিৎ। পাঠাও টাইপের সার্ভিসে কেউ অস্তুষ্টও হয় নাই, খুসি সবাই।

যারা নিয়মিতো বাইকে বা প্রাইভেট কারে পাবলিক সার্ভিস দেয় তারা রিকসা চালায় না, অটোরিক্সাও না। তারা রিকসা চালকদের উপরের স্তরের বলে মনে করে-আমরাও মনে করি। এই প্রতিষ্ঠানগুলোতে বড় দের ইনভেষ্ট আছে।

এই শহরে রিকসা সম্পূর্ণ বন্ধ হলে তাদেরই উপকার হবে। উপর মহলে হাত দিয়ে ধীরে ধীরে রিকসা সম্পূর্ণ বন্ধ হলে শতকুটি টাকার প্রফিট হাতিয়ে নেওয়া সম্ভব।সব কিছু যখন কয়েকটি সিন্ডিকেটের পকেটে চলে যাবে তখন বুঝবেন রিক্সাওয়ালা আপনার কাছ থেকে কত টাকাই বেশি ভাড়া নিতো। উবার-পাঠাওয়ের মতো সার্ভিস অন্য সব কিছুকে খেয়ে দিয়ে হুট করে দাম বাড়িয়ে দিবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *