জীবন উপকরণ

অন্য প্রাণীদের তুলনায় মানুষের একটা বড় পার্থক্য মানুষ নিজেদের জীবনের জন্য বিভিন্ন টুলস তৈরী করতে পারে এবং তা দিয়ে ভবিষ্যতের কাজকে সহজ করে।

ইদানিং উপকরণের সংখ্যা দেখে মনে হচ্ছে-এটা অপচয়। শুধু টাকার না, মেধার আর সময়েরও অপচয়।

হিসেবটা এক এক জনের ক্ষেত্রে এক এক রকমের হতে পারে। তবে যাদের জীবনের অনেক বেশি সংখ্যক টুলস তাদের ক্ষেত্রে এগুলোর নিরাপত্তা, মেইনটেনেন্স এবং সময়ের সাথে সাথে আপডেট না করতে পেরে অনেক ঝামেলা পোহাতে হয়েছে তাও দেখেছি।

আবার অনেক উপকরণউপকারী মনে হলেও এটা আমাদের স্বাস্থ্যের মারাত্বক ক্ষতি করে যাচ্ছে। এক সময় সুনতাম- বড়লোকের বড় রোগ হয়। এখন এটা বিশ্বাস করি যে অতিরিক্ত জীবনউপকরণের ব্যবহারের কারনেই এটা হচ্ছে।

বাসা থেকে অফিস রিকসার পথ। আমি এখন অফিসে হেটে আসি। মাঝে মাঝে রিকসায়। আমার দৈনিক এক ঘন্টা হাটার পরিকল্পনার অনেকটাই হয়ে যায়।

জীবন উপকরণের বেপারে

  • মানুষ দ্রুত কাজটা করতে চায়। এ জন্য একই কাজ যারা নিয়মতিতভাবে করে তারা এমন কিছু খোজে যাতে দ্রুত হয়। একই উপকরণ কারো সময় বাচাতে পারে আবার কারো সময় নষ্টও করতে পারে। তাই কোনউপকরণটি আপনি ব্যবহার করবেন তা যাচাই করে নিতে পারেন। যারা অনেক বেশি রুটি বানায় তাদের জন্য রুটি মেকার। যারা কম সংখ্যক বানায় তাদের ক্ষেত্রে এটি সময় নষ্ট করবে।
  • মানুষ নিজেকে প্রদর্শণ করতে চায়। আর এই চাওয়া থেকে প্রতিটা ঘরে মানুষ তার প্রয়োজনের অতিরিক্ত ফার্নিচার বোঝাই করে। যারা ভাড়া থাকে বা মাঝে মাঝে বাসা পাল্টায় তাদের কিন্তু অতিরিক্ত জিনিস থেকে দূরে থাকার বেপারে সচেতন হওয়া উচিৎ। নিজের মোবাইলটা যেমন স্লিম চায় তেমন কিন্তু নিজের বিছানাটা কেউ চায় না।
  • টেকনিক্যাল জ্ঞান অর্জন করে যে সব উপকরণ ব্যবহার করা জরুরী সেসব কেনার আগে ভেবে দেখা উচিৎ। টেকনিক্যাল জ্ঞান অর্জন করা এবং এটি ব্যবহার করা কতটা জীবন সহজ করবে। যেমন- মটরসাইকেল বা রোবট ঝাড়ুদ্বার।
  • যারা অনেক রয়েল লাইফ স্টাইলে চলতে চান এবং অনেক কিছুই ব্যবহার করতে চান। যেমন অনেকগুলো ফোন, কম্পিউটার, সোস্যাল নেটওয়ার্ক, অনেক জামা-কাপড়, গয়না ইত্যাদি। তারা অন্ততঃ দক্ষ এসিস্ট্যান্ট রাখুন যারা এগুলোকে সময়উপযোগি ব্যবহার করতে সাহায্য করবে। এটার জন্য আপনি বড় প্রতিষ্ঠানগুলো চলার পদ্ধতি দেখতে পারেন। তারা ভিন্ন ভিন্ন সেকসন ও সাবসেকসনে বাগ করে সমস্যাগুলো সমাধার করেন।

296 total views, 2 views today