২০১৬ সালঃ কি শিখলাম আর কি করলাম

২০১৬ সালটি আরেকটি পূর্ণ ব্যস্ততার বছর। ২০১৫ সালের মতোই শ্রীপুরের টেকক্সটাইলের চাকরীটিতেই আছি। চাকরীর পাসাপাসি আগের মতোই একটু লেখালেখি।

ব্যক্তিত্ব

অনেক বেশি লোকের সাথে মিলে মিসে কাজ করতে গিয়ে অনেকটা প্রটেকটিভ মুডে কাজ করা শিখেছি। কোন একটি ক্ষতি হওয়ার শুরুতে সহ্য করার অভ্যাসটা অনেকটা পরিত্যাগ করতে হয়েছে।

টেকনিক্যাল্লি ম্যানেজ করা অনেক বড় বেপার। বড় একটি কাজের বোঝা মাথায় নেওয়ার সক্ষমতা অর্জন করেছি বলে মনে হচ্ছে।

চাকরীতে

বছরের প্রথম দিকে একটি বড় ফ্যাক্টরীর ৭-৮ টি বিল্ডিং এর নেটওয়ার্ক ইনফ্রাস্টাকচার নতুন করে করতে হয়। মূলতঃ ফাইবার অপটিক ক্যাবল দিয়ে প্রতিটি ভবনকে যুক্ত করি। আর প্রতিটি বিল্ডিং এর ভিতরে ইউটিপি ক্যাবল টানা হয়। তার পর Cisco SF300 মডেলের সুইচের মাধ্যমে নেটওয়ার্ক চলে।

বাগান আপডেটঃ

বছরের শুরুটা অনেক ঝামেলায় কাটালেও শেষে অনেকটা রিলাক্স পেয়েছি। তাই বাগানটিতে হাত দিতে পেরেছি। বাগানের ভিডিওটি দেখতে পারেন

ইউটিউব ভিডিওঃ

অনেক আগে থেকে নিজের ভিডিওগুলো মজা করে আপলোড করতাম। এখন আবার নতুন করে আপলোড করা শুরু করেছি। কিছুটা নিয়মিত ভিডিও পোস্ট করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। এ বছর ৪০ টির বেশি ভিডিও আপলোড করা হয়েছে। আর ২ লাখ ভিউ হয়, যা ১ বছর ৫০ দিনের মতো সময়।

টিউটোরিয়ালবিডি পোস্টঃ

অনেকটা অনুর্বর ব্লগে পরিনত হয়। বছরের শুরুর দিকে সময়ই দিতে পারি নি। শেষ দিকে নিজে কিছু পোস্ট করি

ব্যক্তিগত ব্লগ পোস্টঃ

বাংলা অংশটি প্রকাশ করি। আর ৩০টির বেশি পোস্ট করা হয়। বাংলা লেখাগুলোকে পরবর্তিতে ইংরেজিতে রূপান্তরের ইচ্ছা আছে।

টাকা পয়সাঃ

তেমন জমাতে পারি নি। অল্প কিছু আছে।

২০১৭ পরিকল্পনাঃ

  • ১. অল্প জায়গার মধ্যে বাগানটি আরো বড় করার চিন্তা আছে। নিজের শব্জি নিজের বাগান থেকে পেতে চাই।
  • ২. বাগান তৈরীর শখটি সবার মধ্য ছড়িয়ে দিতে ধারাবাহিক ভিডিও প্রকাশ করবো ইনশাল্লাহ। এটার জন্য নতুন একটা চ্যানেল বানাতে হবে। নিজে যে কাজ করি তার ভিডিও অগোছালোভাবে আগের চ্যানেলেই প্রকাশ অভ্যহত থাকবে আশা করি।
  • ৩. ব্লগগুলোতে লেখালেখি চলবে। প্রতিদিন একটা লেখা-আইডিয়া খারাপ না, কি বলেন?
  • ৪. লিনাক্স ও সিস্টেম নিয়ে গবেষণা চলবে। লিনাক্স সারভার সাইড আরো বেশি কাজ শিখা উচিৎ। আপাততঃ কোন প্রো-ল্যাঙ্গুয়েজ শিখার চিন্তা নাই।
  • ৫. অফিসের কাজ এবং ধর্ম মেনে চলার রুলটি শক্ত করে মেনে চলার চেষ্টা থাকবে।
  • ৬. আবারো একটা টিম নিয়ে কাজ করার আগ্রহ তৈরী হলো। তবে ভাবছি একেবারে টিনএজ ছেলেমেয়েদের টিম নিয়ে কাজ শুরু করতে। ১৩-১৪ বছরের ছেলে-মেয়েদের দিয়ে অনলাইনে ক্রিয়েটিভ কি করা যেতে পারে?

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *